জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ কি

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচনি এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের ভূমিকা অতি গুরুত্বপূর্ণ। তাঁরা প্রার্থীর প্রতিনিধি হিসেবে প্রার্থীর আইনানুগ কর্তব্য ও দায়িত্ব পালন করে থাকেন। তাই আপনাকে যদি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ কি সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয় তাহলে আপনাকে নিচ থেকে জেনে নিতে পারেন। আমি এই পোস্টে এদের কাজ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

 

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ কি
জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ কি

নির্বাচনি এজেন্ট নিয়োগঃ

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ কি সম্পর্কে জানার পূর্বে আপনাকে নির্বাচনী এজেন্ট নিয়োগের নীতিমালা জানা জরুরি। গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ, ১৯৭২ এর অনুচ্ছেদ ২১ অনুসারে

  • (১) সংসদ সদস্য পদে নির্বাচনের জন্য যোগ্য কোন ব্যক্তিকে তার নির্বাচনি এজেন্ট হিসেবে নিয়োগ করতে পারেন।
  • (২) প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী লিখিতভাবে যে কোন সময়ে তাঁর এজেন্টের নিয়োগ বাতিল করতে পারবেন এবং তা এরূপভাবে বাতিল করা হলে অথবা নির্বাচনি এজেন্টের মৃত্যু ঘটলে, উক্ত প্রার্থী তার নির্বাচনি এজেন্ট হিসেবে অন্য কোন ব্যাক্তিকে নিয়োগদান করতে পারবেন ।
  • (৩) কোন নির্বাচনি এজেন্টকে নিয়োগদান করা হলে সংশ্লিষ্ট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী উক্ত নির্বাচনি এজেন্টের নাম, পিতার নাম ও ঠিকানাসহ অনুরূপ নিয়োগদানের বিষয় সম্পর্কে রিটার্নিং অফিসারকে লিখিতভাবে অবহিত করবেন।
  • (8) কোন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নির্বাচনি এজেন্ট নিয়োগ না করলে তিনি নিজেই তার নির্বাচনি এজেন্ট বলে গণ্য হবেন ।

 

নির্বাচন সংক্রান্ত পোস্টগুলি দেখুনঃ

পোলিং এজেন্ট নিয়োগঃ

এখানে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ কি জানার আগে আপনাকে জানতে হবে পোলিং এজেন্ট নিয়োগের কিছু শর্তাবলী।  গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের অনুচ্ছেদ ২২ বিধি অনুসারে-

এই পোস্ট আপনার জন্যঃ কোন দলের কোন মার্কা বরাদ্দ রয়েছে | ১২তম জাতীয় সংসদ নির্বাচন 2024

  • (১) প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী অথবা তার নির্বাচনি এজেন্ট, ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পূর্বে, প্রত্যেক ভোটকেন্দ্রের প্রতিটি ভোটকক্ষের জন্য অনধিক একজন করে পোলিং এজেন্ট নিয়োগ করতে পারবেন।
  • (২) প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বা তার নির্বাচনি এজেন্ট, যে কোন সময় পোলিং এজেন্টের নিয়োগ বাতিল করতে পারবেন এবং এরূপভাবে বাতিল করা হলে বা পোলিং এজেন্টের মৃত্যু ঘটলে উক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বা তার এজেন্ট অন্য কোন ব্যক্তিকে পোলিং এজেন্ট হিসেবে নিয়োগ করতে পারবেন এবং অনুরূপ নিয়োগদান সম্পর্কে প্রিজাইডিং অফিসারকে তাৎক্ষনিক অবহিত করবেন।

পড়তে পারেনঃ দ্বাদশ জাতীয় সংসদে নির্বাচনী সংবাদ সংগ্রহে সাংবাদিকদের করণীয় 2024

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ কি

উপরিউক্ত আলোচনায় আমি নির্বাচনী এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্ট কিভাবে নিয়োগ করা হয় তা সম্পর্কে জানিয়েছি। এখন এখানে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ কি সম্পর্কে বিস্তারিত উপস্থাপন করব। একজন প্রার্থীর প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচনি এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টকে আইনের বিধান অনুসারে অন্যান্য দায়িত্বসহ নিম্নে বর্ণিত দায়িত্বসমূহ পালন করতে হবে। যেমনঃ

  • প্রার্থী অথবা তার নির্বাচনি এজেন্ট প্রতিটি ভোটকেন্দ্রের প্রতিটি ভোটকক্ষের জন্য ০১ জন করে পোলিং এজেন্ট নিয়োগ করতে পারবেন এবং তা লিখিত নোটিশের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট প্রিজাইডিং অফিসারকে জানাবেন।
  • ভোটকেন্দ্রে যে স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স ব্যবহার করা হবে তা খালি আছে কিনা, সে বিষয়ে নির্বাচনি এজেন্ট/পোলিং এজেন্ট ভোটগ্রহণের জন্য নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই নিশ্চিত হবেন। তারা আরও নিশ্চিত হবেন যে, স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সটি খালি অবস্থায় দেখানোর পর তা প্রিজাইডিং অফিসার নির্ধারিত উপায়ে সিল করেছেন। অতঃপর প্রিজাইডিং অফিসার ভোটগ্রহণের জন্য স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সটি উপস্থিত প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী/নির্বাচনি এজেন্ট/পোলিং এজেন্ট-এর দৃষ্টি সীমার মধ্যে স্থাপন করেছেন কিনা তাও লক্ষ্য করবেন। কোন নির্বাচনি এজেন্ট/পোলিং এজেন্ট ভোট কেন্দ্রে বা ভোট কক্ষে অযথা ঘুরাফিরা করতে পারবেন না। পোলিং এজেন্ট অবশ্যই তার জন্য নির্দিষ্ট স্থানে উপবিষ্ট থেকে ভোটগ্রহণ কার্যাদি অবলোকন করাই জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ।
  • জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ হলো কোন ভোটার যাতে একাধিকবার ভোট প্রদান না করতে পারেন, সে জন্য নির্বাচনি এজেন্ট অথবা পোলিং এজেন্ট সতর্ক দৃষ্টি রাখবেন এবং এ লক্ষ্যে প্রিজাইডিং অফিসারকে সহায়তা করবেন। নির্বাচনি এজেন্ট পোলিং এজেন্ট বা যে কোন ভোটারের নিকট প্রদত্ত ব্যালট পেপারের অপর পৃষ্ঠায় অফিসিয়াল সিলমোহর সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের স্বাক্ষর আছে কিনা তা যাচাই করেও দেখাও মূল কাজ।
  • কোন ব্যক্তি ভোটদানের উদ্দেশ্যে যখন ব্যালট পেপারের জন্য আবেদন করবেন, তখন আবেদনকারীর পরিচিতি সম্পর্কে সন্দেহের উদ্রেক হলে, পোলিং এজেন্ট প্রিজাইডিং অফিসারের নিকট আপত্তি উত্থাপন করতে পারবেন। ঐ ব্যক্তি এ ভোটকেন্দ্রে অথবা অন্য কোন ভোটকেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন অথবা যে ভোটারের নামে ভোট দিতে চান তিনি সে ব্যক্তি নন এ মর্মে আপত্তি উত্থাপিত হলে তিনি আদালতে উক্ত অভিযোগ প্রমাণ করতে অঙ্গীকার করে আপত্তি উত্থাপনের জন্য নগদ ১০০/- (একশত) টাকা জমা দিবেন। অতঃপর প্রিজাইডং অফিসার ঐ ব্যক্তিকে একটি ব্যালট পেপার সরবরাহ করে আপত্তিকৃত ভোট সম্পর্কে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।
  • যদি কোন ব্যক্তি ব্যালট পেপারের জন্য আবেদন করে অবগত হন যে অন্য কোন ব্যক্তি ইতোপূর্বে নিজেকে উক্ত ভোটার হিসেবে ঘোষণা করে আবেদনকারীর নামে ভোট প্রদান করেছেন তাহলে তিনি অন্য যে কোন ভোটারের মত একই পদ্ধতিতে ব্যালট পেপার পাবেন। এ ব্যালট পেপার “টেন্ডার্ড ব্যালট পেপার” নামে অভিহিত হবে। টেন্ডার্ড ব্যালট পেপার স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে না ফেলে প্রিজাইডিং অফিসারকে দিতে হবে। প্রিজাইডিং অফিসার উক্ত ব্যক্তির নাম ও ভোটারের ক্রমিক নং ফরম-১৪ তে লিপিবদ্ধ করবেন এবং তাতে ভোটারের স্বাক্ষর বা টিপসহি গ্রহণ করবেন। অতঃপর চিহ্নিত ব্যালট পেপার প্যাকেট-৬ এ রাখতে হবে। উল্লেখ্য যে, টেন্ডার্ড ব্যালট পেপার গণনা করা যাবে না ৷
  • ভোটগ্রহণ কার্যাদি সম্পন্ন হওয়ার পর পরই নির্বাচনি এজেন্ট অথবা পোলিং এজেন্ট ভোট গণনাকালে উপস্থিত থেকে ভোট গণনা অবলোকন করতে পারবেন।
  • প্রিজাইডিং অফিসার বিধান অনুসারে ভোট গণনাকালে ভোটকেন্দ্রে ব্যবহৃত স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স খুলে সমস্ত ব্যালট পেপার হতে প্রত্যেক প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর অনুকূলে স্পষ্টভাবে চিহ্নিত করা ব্যালট পেপারগুলো পৃথক পৃথকভাবে রাখছেন কিনা তা অবলোকন করবেন এবং প্রিজাইডিং অফিসার আইনানুগভাবে ভোট গণনা কাজ সম্পন্ন করছেন কিনা সে বিষয়ে সজাগ দৃষ্টি রাখবেন। পোলিং এজেন্টদের ব্যালট পেপারের বাতিলের কারণসমূহ সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা থাকা প্রয়োজন। বিশেষ করে ব্যালট পেপারে প্রার্থীদের নাম ও প্রতীকের অপর পাশে অর্থাৎ ব্যালট পেপারের পিছনের দিকে অফিসিয়াল সিল ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের অনুস্বাক্ষর না থাকলে ব্যালটটি বৈধ হবে না এবং গণনা হতে বাধ দিতে হবে। তা সতর্কতার সাথে লক্ষ্য রেখে বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। উল্লেখ্য, ভোট গণনা কক্ষে প্রত্যেক প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর ০১ জন করে পোলিং এজেন্ট উপস্থিত থাকতে পারবেন।
  • প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী অথবা নির্বাচনি এজেন্ট অথবা পোলিং এজেন্ট যদি ভোট গণনার সময় উপস্থিত থাকেন, তবে তারা প্যাকেটের উপর তাদের স্বাক্ষর ও সিল সংযুক্ত করতে পারবেন।
  • ভোট গণনার পর নির্বাচনি এজেন্ট অথবা পোলিং এজেন্ট প্রিজাইডিং অফিসারের নিকট হতে ভোট গণনার বিবরণী সত্যায়িত অনুলিপি গ্রহণ করতে পারবেন।
  • প্রিজাইডিং অফিসার কর্তৃক গণনাকৃত ফলাফলের বিরুদ্ধে কেবলমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী অথবা নির্বাচনি এজেন্ট অথবা পোলিং এজেন্ট যুক্তিসংগত কারণ দেখিয়ে প্রিজাইডিং অফিসারের নিকট পুনঃগণনার আবেদন করতে পারেন। তবে গণনার যৌক্তিকতা আছে কিনা সে সম্পর্কে প্রিজাইডিং অফিসারই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন।
  • রিটার্নিং অফিসার কর্তৃক ধার্যকৃত সময়সূচি অনুযায়ী প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী অথবা নির্বাচনি এজেন্ট উপস্থিত থেকে ফলাফল একত্রীকরণের কাজ অবলোকন করতে পারবেন।
  • ফলাফল একত্রীকরণের পর উপস্থিত প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী অথবা নির্বাচনি এজেন্ট প্যাকেট গুলোতে স্বাক্ষর বা সিলমোহর প্রদান করতে পারবেন এবং যদি চাহেন, তবে একীভূত বিবরণীর সত্যায়িত অনুলিপি রিটার্নিং অফিসারের নিকট হতে গ্রহণ করা জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের মূল কাজ। 
  • পোলিং এজেন্টগণ ভোটকেন্দ্রের ভিতরে মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না ।

আরো দেখুনঃ প্রিজাইডিং অফিসারের প্রধান কাজ কি | প্রিজাইডিং অফিসার হওয়ার যোগ্যতা 2024

এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের অন্যান্য কাজ

প্রিজাইডিং অফিসার ব্যালট পেপারের হিসাব বিবরণী এবং কাগজাদি গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৩৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রস্তুত করে নিম্নে বর্ণিত প্যাকেটগুলোতে রাখছেন কিনা তাও জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ।

  • (১) প্যাকেট-১: প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের পক্ষে প্রদত্ত বৈধ ব্যালট পেপার রাখার জন্য প্যাকেট
  • (২) প্যাকেট-২: গণনা থেকে বাদ দেয়া ব্যালট পেপারসমূহ রাখার প্যাকেট
  • (৩) প্যাকেট-৩:প্যাকেট-১ ও প্যাকেট-২ রাখার জন্য প্রধান প্যাকেট
  • (৪) প্যাকেট-৪: অব্যবহৃত ব্যালট পেপারসমূহ রাখার জন্য প্যাকেট
  • (৫) প্যাকেট-৫: বিনষ্ট ব্যালট কাগজসমূহ রাখার প্যাকেট
  • (৬) প্যাকেট-৬: টেন্ডার্ড ব্যালট কাগজসমূহ রাখার প্যাকেট
  • (৭) প্যাকেট-৭: ভিন্ন ভিন্ন প্রার্থীর টেন্ডার্ড ব্যালট কাগজসমূহের প্যাকেটগুলো (প্যাকেট-৬) রাখার প্যাকেট
  • (৮) প্যাকেট-৮: আপত্তিকৃত ব্যালট পেপারসমূহ রাখার প্যাকেট
  • (৯) প্যাকেট-৯: চিহ্নিত ভোটার তালিকার কপিসমূহ রাখার প্যাকেট
  • (১০) প্যাকেট-১০: ব্যবহৃত ব্যাল্ট পেপারের মুড়িপত্র রাখার প্যাকেট
  • (১১) প্যাকেট-১১: টেন্ডার্ড ভোটের তালিকার কপিসমূহ রাখার প্যাকেট
  • (১২) প্যাকেট-১২: ইস্যুকৃত ও ব্যবহৃত স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে বিবরণী
  • (১৩) প্যাকেট-: ১৩আপত্তিকৃত ভোটার তালিকা রাখার প্যাকেট
  • (১৪) প্যাকেট-: ১৪ভোট গণনার হিসাব রাখার প্যাকেট
  • (১৫) প্যাকেট-: ১৫ব্যালট পেপারের হিসাব রাখার প্যাকেট
  • (১৬) প্যাকেট-: ১৬বিবিধ কাগজপত্র রাখার প্যাকেট
  • (১৭) বিশেষ খাম: ভোটকেন্দ্র হতে সরাসরি ডাকযোগে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে ভোট গণনার বিবরণী প্রেরণ করার জন্য খাম।

আপনার জন্যঃ রিটার্নিং অফিসার এবং সহকারী রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব, কর্তব্য ও নিয়োগ

শেষকথাঃ

উপরের আলোচনার প্রেক্ষিতে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এজেন্ট এবং পোলিং এজেন্টের কাজ কি নিয়ে পরিপূর্ণ আইডিয়া দেওয়া হয়েছে। তাই আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে করার জন্য একজন পোলিং এজেন্টের ভূমিকা অনেক গুরুত্বপূর্ণ।  

Visited 1,261 times, 1 visit(s) today

Leave a Comment

You cannot copy content of this page