৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি [শিখন অভিজ্ঞতা-১ সেশন-১৩]

সুপ্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ, আজ আমি আপনাদের জন্য ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা-১ সেশন- ১৩ এবং
মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করা প্রয়োজন কেন
 আলোচনা করব। 

এ শিখন-অভিজ্ঞতার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের এমন কিছু কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে যেন তারা ভিন্ন ভিন্ন পরিবেশ-পরিস্থিতিকে বিবেচনায় নিয়ে যোগাযোগ করতে পারে এবং যোগাযোগে সম্মানসূচক শব্দ ব্যবহার করতে পারে।

৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি [শিখন অভিজ্ঞতা-১ সেশন-১৩]
৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি [শিখন অভিজ্ঞতা-১ সেশন-১৩]

৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি

কৌশল: একক কাজ, দলীয় কাজ, উপস্থাপনা, প্রশ্নোত্তর, আলোচনা, তথ্য-অনুসন্ধান।

সেশন সংখ্যা: ১৩

উপকরণ: বাংলা বইয়ের প্রথম অধ্যায়ের সংশ্লিষ্ট অনুশীলনী, বড়ো কাগজ।

কার্যক্রম: 

  • ভিন্ন ভিন্ন পরিস্থিতিতে যোগাযোগের অনুশীলন করা। 
  • মর্যাদা অনুযায়ী যোগাযোগের ক্ষেত্রে যা কিছু বিবেচ্য, তার তালিকা প্রস্তুত করা। 
  • বয়স ও সম্পর্ক অনুসারে সম্বোধনের বৈচিত্র্য শনাক্ত করা। 
  • মর্যাদা অনুযায়ী সর্বনাম ও ক্রিয়া শব্দের ব্যবহার অনুশীলন করা। 
  • ভিন্ন ভিন্ন পরিস্থিতিতে যোগাযোগের অনুশীলন করা। 
  • ভিন্ন ভিন্ন জরুরি পরিস্থিতিতে যোগাযোগের অনুশীলন করা। 

আরো পড়ুনঃ গোপনীয় অনুবেদন নতুন ফরম | ১৩ম-১৬তম গ্রেডের কর্মচারীদের জন্য 2024

সেশন: ১-৩ (৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি) 

এখানে ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা- ১ এর সেশন- ১-৩ পেশ করছি। 

  • ভিন্ন ভিন্ন পরিস্থিতিতে যোগাযোগের অনুশীলন করা

শিক্ষক শিক্ষার্থীদের কয়েকটি দলে ভাগ করবেন এবং প্রথমে পাঠ্যবইয়ের ‘পরিস্থিতি অনুযায়ী যোগাযোগ’ অংশের সবগুলো প্রেক্ষাপট পাঠ করতে বলবেন। এরপর একে একে সব দলকে এক একটি প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনা করতে বলবেন এবং ওই পরিস্থিতিতে তারা কীভাবে যোগাযোগ করবে ভূমিকাভিনয়ের মাধ্যমে তা উপস্থাপন করার নির্দেশ দেবেন। শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বেশি হলে ভিন্ন ভিন্ন দল একই পরিস্থিতি নিয়ে কাজ করতে পারবে। তবে শিক্ষক নিজে থেকেও আরো কিছু পরিস্থিতি শিক্ষর্থীদের জন্য তৈরি করে দিতে পারেন।

শিক্ষার্থীরা কীভাবে ধাপে ধাপে কাজটি করবে সে ব্যাপারে সুস্পষ্ট নির্দেশনা দিতে হবে।

মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করা প্রয়োজন কেন

নমুনা নির্দেশনা:

  • প্রতিদল যে পরিস্থিতি উপস্থাপন করবে প্রথমে তা পড়ো। এর বিষয় ও চরিত্র অনুযায়ী কীভাবে যোগাযোগ করবে তার উপর একটি সংক্ষিপ্ত কথোপকথন প্রস্তুত করে নাও। এ কাজের জন্য সময় ২০ মিনিট।
  • সংক্ষিপ্ত কথোপকথন তৈরি করার কাজটি দলের সকল সদস্য মিলে আলোচনা করে প্রস্তুত করবে। ভূমিকাভিনয়ের কাজটি দলের সকলে মিলে বা মনোনীত কয়েকজন সদস্য মিলে উপস্থাপন করতে পারো।
  • প্রতি দল তাদের ভূমিকাভিনয় উপস্থাপন করার জন্য সময় পাবে ৩-৫ মিনিট।
  • উপস্থাপনার পরে একদল অন্য দলের কাজের উপর মতামত প্রদান করতে পারবে। এজন্য আগে থেকেই কাগজে মতামত লিখে রাখতে পারো।
  • মতামত প্রদানের সময়ে যে বিষয়গুলো বিবেচনায় নেবে: উপস্থাপনায় যেভাবে যোগাযোগ দেখেছি তা মর্যাদাপূর্ণ হয়েছে কি না? যে পরিস্থিতির উপর ভূমিকাভিনয় ছিল তার সাথে মিল ছিল নাকি পরিস্থিতি অনুযায়ী ভিন্ন বিষয় উপস্থাপিত হয়েছে? ভূমিকাভিনয়ে মৌখিক ভাষার পাশাপাশি শারীরিক অঙ্গভঙ্গি এবং অভাষিক যোগাযোগটি কী মর্যাদাপূর্ণ এবং উপযুক্ত ছিল? আর কী উপায়ে যোগাযোগ করা যেত?
  • সব দলের উপস্থাপনা শেষ হলে প্রয়োজনে তোমাদের সংক্ষিপ্ত কথোপকথনটি পরিমার্জন করতে পার।

আরো দেখুনঃ প্রিজাইডিং অফিসারের প্রধান কাজ কি | প্রিজাইডিং অফিসার হওয়ার যোগ্যতা 2024

৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা- ১ এর জন্য শিক্ষক সংক্ষিপ্ত কথোপকথন প্রস্তুতির জন্য ১টি সেশন; ভূমিকাভিনয় ও আলোচনার জন্য ২টি সেশন বরাদ্দ রাখতে পারেন।

মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করা প্রয়োজন কেন

শিক্ষার্থীরা সংক্ষিপ্ত কথোপকথন প্রস্তুতের সময়ে শিক্ষক ঘুরে ঘুরে দলগুলোর কাজ দেখবেন, প্রয়োজন অনুযায়ী নির্দেশনা দিয়ে সহায়তা করবেন এবং পরিস্থিতির ধরন অনুযায়ী তাদের সাথে প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে আলোচনা করবেন। তবে এ পর্যায়ে শিক্ষক সঠিক-ভুল, ভালো-খারাপ, উচিত-অনুচিত ইত্যাদি নিজস্ব ধারণা বা মতামত শিক্ষার্থীদের জানাবেন না, তারা যেন নিজেদের ধারণা অনুযায়ী কথোপকথন প্রস্তুতির পরিকল্পনা করে। শিক্ষার্থীরা তাদের কাজ শেষ করলে পূর্ববর্তী নির্দেশনা অনুযায়ী একে একে সকল দল তাদের কাজ উপস্থাপন করবে।

প্রতি দলের উপস্থাপনা শেষে অন্যান্য সহপাঠীর মতামত প্রদান করতে ও একটি আলোচনার পরিবেশ সৃষ্টির ব্যাপারে শিক্ষক উৎসাহ দেবেন। আলোচনার সুবিধার্থে শিক্ষক নিচের নমুনা প্রশ্নগুলো করবেন:

  • ‘পরিস্থিতি ১’ নিয়ে প্রথম দল যেভাবে যোগাযোগ দেখাল, বাস্তব জীবনে আমরা কী এভাবে যোগাযোগ করি?
  • প্রথম দল যেভাবে ভূমিকাভিনয় করে দেখাল, সেটাকে কী সম্মানজনক উপায়ে যোগাযোগ বলা যাবে? কেন বা কেন নয়?
  • তুমি যদি এখন ‘পরিস্থিতি ১’ এর মতো অবস্থায় থাকতে তুমি কী একইভাবে কথা বলতে বা আচরণ করতে?
  • কারা ভিন্নভাবে করতে? কোন অংশগুলো ভিন্নভাবে করতে, বলো।
  • পরিস্থিতিটি ভূমিকাভিনয়ের মাধ্যমে উপস্থাপনের সময়ে মুখে বলার পাশাপাশি আমরা আর কী করেছি?
  • আমাদের গলার স্বর, চোখের চাহনি, শারীরিক অঙ্গভঙ্গি এগুলো কেমন ছিল? এ পরিস্থিতিটিতে আর কী ধরনের অভাষিক কাজ করা যেত?

এ ক্ষেত্রেও কোন কাজগুলো করলে ভালো হতো বা কোনগুলো করা উচিত নয় এ সম্পর্কে শিক্ষক নিজের মতামত জানাবেন না। শিক্ষার্থীরা যেন তাদের নিজস্ব অভিজ্ঞতা, ধারণা এবং মতামত নির্দ্বিধায় উপস্থাপন করতে পারে তা নিশ্চিত করবেন।

সেশন: ৪-৫ (৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি) 

এখানে ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা- ১ এর সেশন- ৪-৫ পেশ করছি। 

  • মর্যাদা অনুযায়ী যোগাযোগের ক্ষেত্রে যা কিছু বিবেচ্য তার তালিকা প্রস্তুত করা

শিক্ষক শিক্ষার্থীদের কয়েকটি ছোটো দলে বিভক্ত করবেন। এরপর প্রতি দলকে পাঠ্যবইয়ের ‘যোগাযোগের ক্ষেত্রে বিবেচ্য’ অংশ নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে পূরণ করতে বলবেন। এ কাজের জন্য সময় নির্দিষ্ট করে দেবেন এবং জানাবেন যে কাজ শেষে প্রতি দল থেকে এক/দুইজন শিক্ষার্থী মিলে তাদের কাজ উপস্থাপন করবে।

আরো পড়ুনঃ {আপডেটেড} জন্ম নিবন্ধন দিয়ে নগদ একাউন্ট খোলার নিয়ম 2024

৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিক্ষার্থীরা কীভাবে ধাপে ধাপে কাজটি করবে সে ব্যাপারে সুস্পষ্ট নির্দেশনা দেবেন। নমুনা নির্দেশনা:

মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করা প্রয়োজন কেন

 

  • দলে আলোচনা করে যে কোনো পরিস্থিতিতে যোগাযোগের জন্য কোন বিষয়গুলো সবসময়ে বিবেচনা করা উচিত বলে মনে করো তার একটি তালিকা খাতায় প্রস্তুত করো। এ কাজের জন্য সময় ১৫ মিনিট।
  • তালিকা প্রস্তুতের সময়ে দলের কোনো সদস্যের মতামত বাদ দেওয়া যাবে না। সবার মতামত যেন তালিকায় থাকে।
  • ১৫ মিনিট শেষে প্রতি দল থেকে এক/দুইজন মিলে তাদের কাজ উপস্থাপন করবে। দল থেকে কে কারা প্রতিনিধিত্ব করবে তা আগেই সিদ্ধান্ত নিয়ে নেবে। প্রতি দল তাদের উপস্থাপনার জন্য সময় পাবে ২ মিনিট।
  • এরপর একে একে অন্যান্যদল তাদের কাজ উপস্থাপন করবে। উপস্থাপনার পরপরই একদল অন্য দলের কাজের উপর মতামত প্রদান করতে পারবে। এজন্য আগে থেকেই কাগজে মতামত লিখে রাখতে পারো।
  • প্রতি দলের উপস্থাপনার সময়ে পূর্ববর্তী দলগুলোর সাথে যে বিষয়গুলো মিলে যাবে, সেগুলো চিহ্নিত করে রাখবে এবং নিজেদের উপস্থাপনার সময়ে পূর্ববর্তী দলগুলোর চেয়ে ভিন্ন কিছু থাকলে শুধুমাত্র তা উল্লেখ করবে।
  • মতামত প্রদানের সময়ে যে বিষয়গুলো বিবেচনায় নেবে: যোগাযোগের জন্য যে বিবেচ্যগুলো বলা হয়েছে তা কী আমাদের দৈনন্দিন জীবনের জন্য উপযুক্ত? আমরা কী আসলেই এ ধারণাগুলো মেনে চলার চেষ্টা করি? বক্তব্যগুলো কি যে কোনো পরিস্থিতির জন্য প্রযোজ্য নাকি পরিস্থিতি অনুযায়ী বিবেচ্য পরিবর্তন হতে পারে? বক্তব্যগুলো কি সব বয়স, সম্পর্ক, পেশা, ধর্ম, জাতি ও লিঙ্গের মানুষের জন্য প্রযোজ্য?
  • উপস্থাপন শেষে অন্যদের মতামত ও আলোচনার প্রেক্ষিতে প্রতিদল চাইলে তোমাদের লেখা পরিমার্জন করতে পারবে।

 

প্রতি দলের উপস্থাপনা শেষে অন্যান্য সহপাঠীর মতামত প্রদান করতে ও একটি আলোচনার পরিবেশ সৃষ্টির ব্যাপারে শিক্ষক উৎসাহ দেবেন। সকল দলের উপস্থাপনা শেষে যে কোনো পরিস্থিতিতে যোগাযোগের জন্য যে বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখা উচিত, আলোচনার ভিত্তিতে তা নিয়ে একটি সারমর্ম করবেন। তবে শিক্ষক লক্ষ রাখবেন, যোগাযোগের ক্ষেত্রে বিবেচ্য নিয়ে আলোচনা করার সময়ে যেন নিজের ব্যক্তিগত দৃষ্টিভঙ্গি থেকে শিক্ষার্থীদের উপর নিজস্ব মতামত চাপিয়ে না দেন বা এমন কোনো বক্তব্য প্রদান করেন, যা নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা পরিস্থিতির জন্য প্রযোজ্য নয়।

এরপর পরবর্তী ক্লাসে আসার আগে কিছু তথ্যসংগ্রহের উপর ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি সম্পর্কে নির্দেশনা দেবেন:

  • বিভিন্ন পরিস্থিতিতে মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগের ক্ষেত্রে যেসব বিষয় বিবেচনায় রাখা উচিত সে- ব্যাপারে তোমরা প্রত্যেকেই পরিবার বা পরিবারের বাইরে কমপক্ষে একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির সাথে কথা বলবে। প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির সাথে কথোপকথনের ভিত্তিতে দলে প্রস্তুত করা তালিকাটি পরিমার্জন করতে পারবে।
  • যদি কোনো দল তাদের পূর্বের কাজ পরিমার্জন করো, তবে কী কী পরিবর্তন করেছ তা পরবর্তী ক্লাসে উপস্থাপন করবে।

পরবর্তী সেশনে যেসব দল তাদের তালিকায় পরিবর্তন করে আনবে তা নিয়ে তারা পূর্বের ন্যায় উপস্থাপন করবে এবং পরিবর্তনগুলো শ্রেণিকক্ষের সবার মতামত নিয়ে আলোচনা করবে। সকলের উপস্থাপনা ও পরিমার্জন শেষে প্রতি দল তাদের তালিকাটি একটি বড়ো কাগজে লিখে শিরোনাম দিয়ে শ্রেণিকক্ষের দেয়ালে টাঙিয়ে রাখবে।

মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করা প্রয়োজন কেন

 

নমুনা উত্তর: যোগাযোগের ক্ষেত্রে বিবেচ্য

 

  • ব্যক্তির বয়স ও তার সাথে সম্পর্কের ধরন অনুযায়ী সম্বোধন করা ।
  • গলার স্বর: উচ্চস্বরে বা অনেক নিচু স্বরে কথা না বলা।
  • ইতিবাচক অঙ্গভঙ্গি: হাত, পা, এবং শারীরিক অঙ্গভঙ্গি এমন থাকা যেন তা অসম্মান না বোঝায়।
  • অন্য ব্যক্তির শারীরিক ও মানসিক অবস্থা বিবেচনা করা।
  • যে বিষয়ে আলোচনা হচ্ছে সে প্রসঙ্গের মধ্যে থেকে কথা বলা ।
  • চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলা ।
  • অযাচিত/ব্যক্তিগত প্রশ্ন না করা
  • সম্মানজনক শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা।
  • স্থান ও পরিস্থিতির রীতিনীতি বিবেচনা করা ।

সেশন: ৬-৭ (৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি) 

এখানে ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা- ১ এর সেশন- ৬-৭ পেশ করছি। 

  • বয়স ও সম্পর্ক অনুসারে সম্বোধনের বৈচিত্র্য শনাক্ত করা

দৈনন্দিন জীবনে আমরা কত বৈচিত্র্যপূর্ণ উপায়ে একে অন্যকে সম্বোধন করি, তা নিয়ে শিক্ষক প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করবেন। 

নমুনা প্রশ্ন:

  • সবাই কি নিজেদের ভাই-বোনকে তুমি ডেকেও সম্বোধন করি, নাকি কেউ কেউ তুই বা আপনি ডেকে সম্বোধন করি?
  • একই বন্ধুর সঙ্গে আমরা কি স্কুলে, নিজের বাসায়, খেলার মাঠে, বা কোনো অনুষ্ঠানে একইভাবে কথা বলি, নাকি ভিন্নভাবে কথা বলি?
  • বয়সে ছোটো, সমান বা বড়ো মানুষের সঙ্গে কি আমরা একইভাবে কথা বলি?

এরপর পাঠ্যবই থেকে ‘ভাষায় মর্যাদার প্রকাশ’ ছকটি প্রথমে এককভাবে ও পরে দলীয় কাজের মাধ্যমে সম্পন্ন করার নির্দেশ দেবেন। কাজ শেষে প্রতি দলকে তাদের কাজ উপস্থাপন করার নির্দেশ দেবেন। দলীয় কাজ করার সময়ে শিক্ষক তাদের সাথে প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে আলোচনা করবেন, ঘুরে ঘুরে দলগুলোর কাজ দেখবেন, এবং প্রয়োজন অনুযায়ী নির্দেশনা দিয়ে সহায়তা করবেন। তবে উত্তর বলে দেবেন না। শিক্ষার্থীরা কীভাবে দলীয় কাজ করবে ও উপস্থাপন করবে সে-ব্যাপারে শিক্ষক সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দেবেন।

নমুনা নির্দেশনা:

  • প্রথমে প্রত্যেকে নিজের খাতায় বা বইয়ের শূন্যস্থানে ‘ভাষায় মর্যাদার প্রকাশ’ ছকটি এককভাবে পূরণ করবে। এ কাজের জন্য সময় ১০ মিনিট। ছকটি পূরণের সময়ে নিজেদের পরিচিত স্থান, চেনা বা অচেনা ব্যক্তির সঙ্গে কথোপকথন, আনুষ্ঠানিক বা অনানুষ্ঠানিক ঘটনা ইত্যাদি সকল পরিস্থিতি বিবেচনায় নেওয়ার চেষ্টা করবে।
  • একক কাজ শেষে দলের সবার উত্তর মিলিয়ে একটি ছক প্রস্তুত করবে। এটি একটি বিচ্ছিন্ন কাগজে লিখবে। দলীয়ভাবে ছকটি চূড়ান্ত করার সময়ে কারো মতামতই বাদ দেওয়া যাবে না। এ কাজের জন্য সময় ১০ মিনিট।
  • কাজ শেষে প্রতিটি দল থেকে একজন/দুইজন তাদের কাজ উপস্থাপন করবে। দল থেকে কে/কারা প্রতিনিধিত্ব করবে তা আগেই সিদ্ধান্ত নিয়ে নেবে।
  • এরপর একে একে অন্যদল তাদের কাজ উপস্থাপন করবে। উপস্থাপনার পরপরই একদল অন্য দলকে কাজের উপর মতামত প্রদান করতে পারবে। এজন্য আগে থেকেই কাগজে মতামত লিখে রাখতে পারো।
  • প্রতি দলের উপস্থাপনার সময়ে পূর্ববর্তী দলগুলোর সাথে যে বিষয়গুলো মিলে যাবে, সেগুলো চিহ্নিত করে রাখবে এবং নিজেদের উপস্থাপনার সময় পূর্ববর্তী দলগুলোর চেয়ে ভিন্ন কিছু থাকলে শুধুমাত্র তা উল্লেখ করবে।

 

নমুনা উত্তর: ভাষায় মর্যাদার প্রকাশ

 

কী বলি কাদের বলি
তুমি, তোমার, তোমাকে, তোমরা, তোমাদেরছোটো ভাই-বোন, বন্ধু, সমবয়সী, বাবা-মা
আপনি, আপনার, আপনাকে, আপনারা, আপনাদেরবড়োদের, অপরিচিতদের, বাবা-মা, শিক্ষক
তুই, তোর, তোকে, তোরা, তোদেরকাছের মানুষদের; ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের
সে, তার, তাকে, তারা, তাদেরবয়সে ছোটোদের; ঘনিষ্ঠদের
তিনি, তাঁর, তাঁকে, তাঁরা, তাঁদেরবয়সে বড়োদের, সম্মানিত ব্যক্তিদের
ও, ওর, ওকে, ওরা, ওদেরবয়সে ছোটোদের; ঘনিষ্ঠদের

 

দলীয় উপস্থাপনার উপর অন্য সহাপাঠীদের মতামত প্রদান করার ব্যাপারে উৎসাহ দেবেন। সব দলের উপস্থাপনা শেষ হলে পূর্বের করা প্রশ্নগুলো ও শিক্ষার্থীদের কাজগুলো নিয়ে আলোচনা করবেন।

নমুনা প্ৰশ্নসম্ভাব্য উত্তর
১. সবাই কি নিজেদের মা-বাবা, ভাই-বোনকে তুমি ডেকে সম্বোধন | করি, নাকি কেউ কেউ তুই বা আপনি ডেকেও সম্বোধন করি? কেউ কেউ নিজের বাবা-মা ও ভাই-বোনকে আপনি বলে সম্বোধন করে কেউ তুমি করে বলে, কেউ তুই করেও বলে। এটি নির্ভর করে তার পরিবার ও সমাজে প্রচলিত অভ্যাস ও রীতিনীতি অনুযায়ী।
২. একই বন্ধুর সঙ্গে আমরা কি স্কুলে, নিজের বাসায়, খেলার মাঠে, বা কোনো অনুষ্ঠানে | একইভাবে কথা বলি, নাকি ভিন্নভাবে কথা বলি?আমরা অনেক সময়েই পরিবেশ-পরিস্থিতি অনুযায়ী একই ব্যক্তিকে ভিন্নভাবে সম্বোধন করি বা তার সঙ্গে ভিন্নভাবে কথা বলি। একই বন্ধুর সাথে বিদ্যালয়ে বা নিজেদের ব্যক্তিগত আলোচনায় যেভাবে কথা বলি, কোনো বিয়ের অনুষ্ঠানে বা ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে তার চেয়ে ভিন্নভাবে কথা বলি ।
৩. বয়সে ছোটো, সমান বা বড়ো মানুষের সঙ্গে কি আমরা একইভাবে কথা বলি?ব্যক্তির বয়স, তার সঙ্গে আমাদের সম্পর্কের ভিত্তিতেও তাদের সঙ্গে আমাদের আচরণ পরিবর্তিত হয়।
৪. আমরা কি শুধু মুখে কথা বলেই আমাদের মনের কথা প্রকাশ করি, | নাকি অন্য কোনোভাবেও প্রকাশ করি? কী কী উপায়ে আমরা তা প্রকাশ করি?অন্যদের সঙ্গে যোগাযোগের ক্ষেত্রে আমরা মুখে কথা বলা ও লেখার পাশাপাশি ইশারা বা অঙ্গভঙ্গিও ব্যবহার করি। আমাদের প্রাত্যহিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে সম্মানজনক শারীরিক ভাষার ব্যবহারও গুরুত্বপূর্ণ।

 

শিক্ষক পরিস্থিতি অনুযায়ী অঙ্গভঙ্গির ব্যবহার ও ভিন্নতা বোঝাতে নিচের বাক্যগুলো ভিন্ন ভিন্ন স্বরে বলবেন ও অঙ্গভঙ্গি করে দেখাবেন।

গলার স্বর ও চাহনি: এদিকে এসো (রূঢ়ভাবে নির্দেশ), এদিকে এসো (নম্রভাবে অনুরোধ) ।

এদিকে আয় (রুঢ়), এদিকে আয় (নম্র)।

অঙ্গভঙ্গি ও চাহনি: এদিকে এসো (এক আঙুল তুলে রূঢ়ভাবে নির্দেশ), এদিকে এসো (হাত তুলে নম্রভাবে অনুরোধ)।

 

সার্বিক আলোচনা শেষে শিক্ষক বলবেন, যে আমরা সকলেই পরিবেশ-পরিস্থিতি, মানুষের বয়স, তার সাথে নিজেদের সম্পর্ক, সামাজিক অবস্থান ইত্যাদি বিবেচনায় ভিন্ন ভিন্ন উপায়ে সম্বোধন করি। সম্বোধনের ক্ষেত্রে এ ধরনের ভিন্নতা ও বৈচিত্র্য খুবই স্বাভাবিক বিষয়। তবে আমরা যে-ধরনের ভাষাই ব্যবহার করি না কেন তা যেন নিজের এবং অপরের জন্য কোনোভাবে অসন্মানজনক না হয় ব্যাপারে সচেষ্ট থাকতে হবে।

এরপর পাঠ্যবইয়ের ‘ভাষিক ও অভাষিক যোগাযোগ’ অনুচ্ছেদটি শিক্ষার্থীদের নীরবে পড়তে বলবেন। শিক্ষার্থীদের প্রশ্ন করবেন :

  • সামনাসামনি মুখে কথা বলা ছাড়াও দৈনন্দিন জীবনে আর কত উপায়ে তুমি মানুষের সাথে যোগাযোগ করো? (নমুনা উত্তর: লিখে, ইশারা করে, মোবাইলে অডিও বা ভিডিও কল করে ইত্যাদি) 

একইসাথে যোগাযোগের ক্ষেত্রে ভাষিক যোগাযোগের পাশাপাশি ইশারা ও অঙ্গভঙ্গির যোগাযোগ কেন গুরুত্বপূর্ণ তা নিয়ে শিক্ষার্থীদের মতামত জানতে চাইবেন ও আলোচনা করবেন।

 

সেশন: ৮ (৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি) 

এখানে ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা- ১ এর সেশন- ৮ পেশ করছি। 

  • মর্যাদা অনুযায়ী সর্বনাম ও ক্রিয়া শব্দের ব্যবহার অনুশীলন করা

 

শিক্ষক পাঠ্যবইয়ের ‘মর্যাদা অনুযায়ী সর্বনাম ও ক্রিয়া’, ‘সর্বনামের রূপ’ ও ‘ক্রিয়ার রূপ’ এ ৩টি অনুচ্ছেদ শিক্ষার্থীদের নীরবে পড়তে বলবেন। এরপর অনুচ্ছেদে প্রদত্ত ধারণা অনুযায়ী সর্বনামের ধরন, সর্বনামের রূপ, এবং সর্বনাম অনুযায়ী ক্রিয়ার রূপ নিয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করবেন। এরপর পাঠ্যবই থেকে ‘সর্বনাম ও ক্রিয়া দিয়ে বাক্য তৈরি’ ছকটি প্রথমে এককভাবে ও পরে দলে একে অপরের সাথে নিজেদের কাজ মিলিয়ে নেবার। কাজশেষে প্রতি দলকে তাদের কাজ উপস্থাপন করার নির্দেশনা দেবেন। 

 

নমুনা নির্দেশনা:

 

  • প্রথমে প্রত্যেকে নিজেদের খাতায় বা বইয়ের শূন্যস্থানে ‘সর্বনাম ও ক্রিয়া দিয়ে বাক্য তৈরি’ ছকটি এককভাবে পূরণ করবে। এ কাজের জন্য সময় ৫ মিনিট।
  • একক কাজ শেষে দলে একে অপরের সাথে নিজেদের উত্তরগুলো মিলিয়ে নেবে। যদি কারো বাক্য তৈরি করা হয়েছে কি হয়নি বলে সন্দেহ হয় আমাকে জানাবে। এ কাজের জন্য সময় ৫ মিনিট। 
  • দলীয়ভাবে মিলিয়ে নেবার কাজ শেষে প্রতিটি দল থেকে একজন/দুইজন তাদের দলের যে কোনো ৬টি বাক্য উপস্থাপন করবে। দল থেকে কে/কারা প্রতিনিধিত্ব করবে তা আগেই সিদ্ধান্ত নিয়ে নেবে। 
  • প্রতি দলের উপস্থাপনার সময়ে পূর্ববর্তী দলগুলোর সাথে যে বিষয়গুলো মিলে যাবে, সেগুলো চিহ্নিত করে রাখবে এবং নিজেদের উপস্থাপনার সময়ে পূর্ববর্তী দলগুলোর চেয়ে ভিন্ন কিছু থাকলে শুধুমাত্র তা উল্লেখ করবে।

 

নমুনা উত্তর: এখানে ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা- ১ এর সেশনের সর্বনাম ও ক্রিয়া দিয়ে বাক্য তৈরি

 

সর্বনামক্ৰিয়াবাক্য
১. তুমি/ তোমরাআসাতুমি আমাদের বাড়িতে এসো।
২. আপনি/ আপনারাখাওয়াআপনারা কোথায় খাবেন?
৩. তুই/ তোরাকরাতুই বাড়ির কাজ ভালোভাবে করিস।
৪. সে/ তারালেখেতারা চিঠি লেখে।
৫. তিনি/ তাঁরাচেনাতিনি রাজুকে চেনেন।
৬. ও/ ওরাপড়াও আমার সঙ্গে পড়ে।

 

আরও অনুশীলনের জন্য শিক্ষক নিচের কাজটি করাতে পারেন। এক্ষেত্রে শিক্ষক অনুচ্ছেদটি বোর্ডে লিখবেন এবং শিক্ষার্থীদের একক/জোড়ায় কাজের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সর্বনাম ও ক্রিয়া শব্দের পরিবর্তন করতে বলবেন। শিক্ষার্থীরা কাজ শেষ করলে তাদের উপস্থাপনা হতেই আলোচনার মাধ্যমে সঠিক উত্তর নির্ধারণ করে দেবেন।

 

সহায়ক কাজ: এ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি থেকে মর্যাদা অনুযায়ী ক্রিয়া এবং সর্বনামের ব্যবহার

মর্যাদাসূচক সর্বনাম ও ক্রিয়াপদের ব্যবহার বিবেচনায় অনুচ্ছেদটির নিচে দাগ দেওয়া শব্দগুলো পরিবর্তন করো: 

অনুচ্ছেদ: আবেদ সাহেব প্রতিদিন ভোরে হাঁটতে বের হয়। হাঁটতে যাওয়ার আগে সে ভালো করে হাত-মুখ ধুয়ে নেয় এবং সামান্য নাস্তা করেসে প্রতিদিন প্রায় ৩০ মিনিট হাঁটে। তবে হাঁটার ব্যাপারে সে একা না, তাঁর আরো কয়েকজন সঙ্গী আছে । তারাও অনেকদিন ধরে নিয়মিত হাঁটছে

 

উত্তর: আবেদ সাহেব প্রতিদিন ভোরে হাঁটতে বের হন। হাঁটতে যাওয়ার আগে তিনি ভালো করে হাত-মুখ ধুয়ে নেন এবং সামান্য নাস্তা করেনতিনি প্রতিদিন প্রায় ৩০ মিনিট হাঁটেন। তবে হাঁটার ব্যাপারে তিনি একা নন, তার আরো কয়েকজন সঙ্গী আছেন। তারাও অনেকদিন ধরে নিয়মিত হাঁটছেন

সেশন: ৯-১০ (৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি) 

এখানে ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা- ১ এর সেশন- ৯-১০ পেশ করছি। 

ভিন্ন ভিন্ন পরিস্থিতিতে যোগাযোগের অনুশীলন করা

 

শিক্ষক শিক্ষার্থীদের কয়েকটি ছোটো দলে বিভক্ত করবেন । তিনি পাঠ্যবই থেকে ‘যোগাযোগের অনুশীলন’ থেকে ভিন্ন ভিন্ন প্রেক্ষাপট শিক্ষার্থীদের পাঠ করতে বলবেন। এরপর প্রতি দলে যে কোনো একটি প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনা করতে বলবেন এবং ওই পরিস্থিতিতে তারা কীভাবে মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করতে পারে তা নিয়ে ভূমিকাভিনয়ের পরিকল্পনা করতে বলবেন। 

শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বিবেচনায় ভিন্ন ভিন্ন দল একই পরিস্থিতি নিয়ে পরিকল্পনা করতে পারবে। একইসাথে শিক্ষক নিজে থেকেও কিছু পরিস্থিতি শিক্ষার্থীদের জন্য তৈরি করে দিতে পারেন, যেখানে তাদের প্রাত্যহিক জীবনের ন্যায় বৈচিত্র্যপূর্ণ যোগাযোগের সুযোগ থাকবে।

প্রথমে তাদের একটি সংক্ষিপ্ত কথোপকথন প্রস্তুত করার নির্দেশনা দেবেন। এ সময়ে শিক্ষক নমুনা প্রেক্ষাপট অনুযায়ী তাদের সাথে প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে আলোচনা করবেন, ঘুরে ঘুরে দলগুলোর কাজ দেখবেন, এবং প্রয়োজন অনুযায়ী নির্দেশনা ও ধারণা দিয়ে সহায়তা করবেন। শিক্ষার্থীরা তাদের কাজ শেষে করলে প্রতি দল তাদের কাজ উপস্থাপন করবে।

 

৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা- ১ তে শিক্ষার্থীরা কীভাবে উপস্থাপন করবে সে ব্যাপারে শিক্ষক সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দেবেন। নমুনা নির্দেশনা:

 

  • প্রতি দল তাদের উপস্থাপনার জন্য সময় পাবে ৩-৫ মিনিট।
  • উপস্থাপনার পরে একদল অন্য দলকে কাজের উপর মতামত প্রদান করতে পারবে। এজন্য আগে থেকেই কাগজে তাদের মতামত লিখে রাখতে পারো।

প্রতি দলের উপস্থাপনা শেষে অন্যান্য সহপাঠীর মতামত প্রদান করার ব্যাপারে শিক্ষক উৎসাহ দেবেন। শিক্ষার্থীদের মতামত প্রদান করাকে উৎসাহিত করার জন্য শিক্ষক নিচের প্রশ্নগুলো করবেন:

  • ‘পরিস্থিতি ১’ নিয়ে প্রথম দল যেভাবে যোগাযোগ দেখাল সেখানে কী মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ দেখেছি আমরা?
  • আর কী করা হলে পরিস্থিতি অনুযায়ী যোগাযোগটি আরো কার্যকর হতো?

 

শিক্ষার্থীদের উপস্থাপনার ভিত্তিতে শিক্ষক তাদের সাথে মর্যাদাপূর্ণ যোগাযোগ নিয়ে প্রশ্নোত্তরের ভিত্তিতে আলোচনা করবেন। সন্মানজনক যোগাযোগের ক্ষেত্রে সর্বনাম ও ক্রিয়ার ব্যবহার, শারীরিক অঙ্গভঙ্গি, পরিস্থিতি অনুযায়ী আচরণ করা ইত্যাদি বিষয়গুলো শিক্ষার্থীদের আবার মনে করিয়ে দেবেন। শিক্ষার্থীরা যেন তাদের নিজস্ব অভিজ্ঞতা, ধারণা এবং মতামত নির্দ্বিধায় উপস্থাপন করতে পারে তা নিশ্চিত করবেন।

 

সেশন: ১১-১৩ (৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি) 

এখানে ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা মর্যাদা বজায় রেখে যোগাযোগ করি এর শিখন অভিজ্ঞতা- ১ এর সেশন- ১১-১৩ পেশ করছি। 

ভিন্ন ভিন্ন জরুরি পরিস্থিতিতে যোগাযোগের অনুশীলন করা

১ম ধাপ

পাঠ্যবইয়ের ‘জরুরি যোগাযোগ’ ছকটিতে প্রদত্ত পরিস্থিতিগুলো অনুযায়ী শিক্ষার্থীরা কাদের সাথে এবং কীভাবে যোগাযোগ করবে তা দলীয় কাজের মাধ্যমে প্রস্তুত করতে নির্দেশ দেবেন। একইসাথে শিক্ষক নিজে থেকেও কিছু জরুরি পরিস্থিতি শিক্ষার্থীদের জন্য তৈরি করে দিতে পারেন, যা তাদের জীবনের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ (যেমন: সাইক্লোনপ্রবণ এলাকা সাইক্লোনের পূর্বাভাস সম্পর্কে কাদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে? কীভাবে যোগাযোগ করতে হবে?)।

 

এ কাজের জন্য সময় নির্দিষ্ট করে দেবেন এবং জানাবেন যে কাজ শেষে প্রতি দল থেকে এক/দুইজন শিক্ষার্থী মিলে তাদের কাজ উপস্থাপন করবে। শিক্ষার্থীরা কীভাবে ধাপে ধাপে কাজটি করবে সে ব্যাপারে সুস্পষ্ট নির্দেশনা দেবেন। নমুনা নির্দেশনা :

  • দলে আলোচনা করে জরুরি পরিস্থিতি অনুযায়ী কার সঙ্গে ও কীভাবে যোগাযোগ করা যেতে পারে বলে মনে করো তা দলে আলোচনা করে একটি তালিকা প্রস্তুত করো। এ কাজের জন্য সময় ২০ মিনিট।
  • তালিকা প্রস্তুতের সময়ে দলের কোনো সদস্যের মতামত বাদ দেওয়া যাবে না। সবার মতামত যেন তালিকায় থাকে।
  • কাজ শেষে প্ৰতি দল থেকে এক/দুইজন মিলে তাদের কাজ উপস্থাপন করবে। দল থেকে কে/কারা প্রতিনিধিত্ব করবে তা আগেই সিদ্ধান্ত নিয়ে নেবে। প্রতি দল তাদের উপস্থাপনার জন্য সময় পাবে ২ মিনিট ।
  • এরপর একে একে অন্যদল তাদের কাজ উপস্থাপন করবে। উপস্থাপনার পরপরই একদল অন্য দলকে কাজের উপর মতামত প্রদান করতে পারবে। এজন্য আগে থেকেই কাগজে মতামত লিখে রাখতে পারো। 
  • প্রতি দলের উপস্থাপনার সময়ে পূর্ববর্তী দলগুলোর সাথে যে বিষয়গুলো মিলে যাবে, সেগুলো চিহ্নিত করে রাখবে এবং নিজেদের উপস্থাপনার সময়ে পূর্ববর্তী দলগুলোর চেয়ে ভিন্ন কিছু থাকলে শুধুমাত্র তা উল্লেখ করবে।
  • উপস্থাপন শেষে অন্যদের মতামত ও আলোচনার প্রেক্ষিতে প্রতিদল চাইলে তোমাদের লেখা পরিমার্জন করতে পারবে।

শিক্ষক ঘুরে ঘুরে শিক্ষার্থীদের কাজ পর্যবেক্ষণ করবেন এবং প্রয়োজনে অতিরিক্ত নির্দেশনা ও ধারণা দিয়ে সাহায্য করবেন। দলীয় উপস্থাপনার উপর অন্য সহাপাঠীদের মতামত প্রদান করার ব্যাপারে উৎসাহ দেবেন। পরবর্তী ক্লাসে আসার আগে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের প্রতি নিম্নলিখিত নির্দেশ দেবেন :

 

  • পরিবারের সদস্য বা অন্য যে কোনো পরিচিত ব্যক্তির সাথে জরুরি পরিস্থিতিগুলোর ধরন অনুযায়ী কার সাথে ও কীভাবে যোগাযোগ করা যেতে পারে সে ব্যাপারে আলোচনার মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করবে। আলোচনার ভিত্তিতে ভিত্তিতে দলে প্রস্তুত করা তালিকাটি পরিমার্জন করতে পারবে।
  • যদি কোনো দল তাদের পূর্বের কাজ পরিমার্জন করো, তবে কী কী পরিবর্তন করেছ তা পরবর্তী ক্লাসে উপস্থাপন করবে।

 

পরবর্তী সেশনে যেসব দল তাদের তালিকায় পরিবর্তন করে আনবে তা নিয়ে তারা পূর্বের ন্যায় উপস্থাপন করবে এবং পরিবর্তনগুলো শ্রেণিকক্ষের সবার মতামত নিয়ে আলোচনা করবে।

২য় ধাপ

প্রদত্ত পরিস্থিতিগুলোতে বাস্তবিকই যাদের সাথে যোগাযোগ করতে হয়, শিক্ষার্থীরা যেন তাদের সাথে সরাসরি বা মোবাইলের মাধ্যমে কথা বলতে পারে শিক্ষক সে ব্যবস্থা করার চেষ্টা করবেন। অর্থাৎ, আগুন লাগলে ফায়ার সার্ভিসের নম্বরে কল দিতে হয়, তাই ১নং পরিস্থিতিতে স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস নম্বরে শিক্ষার্থীরা মোবাইলের মাধ্যমে কল দেবে এবং তেমন পরিস্থিতিতে তারা কী করবে তা ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষের নিকট জানতে চাইবে। 

শিক্ষক আগে থেকেই সেই সকল ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে কথা বলে রাখবেন যেন শিক্ষার্থীরা যখন তাঁদের সাথে যোগাযোগ করবে তখন তাঁরা যেন সে ব্যাপারে সচেতন থাকেন। যদি কোনো ক্ষেত্রে উপযুক্ত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে কথা বলা সম্ভব না হয়, সেক্ষেত্রে শিক্ষক নির্ভরযোগ্য কোনো ব্যক্তি বা অপর কোনো শিক্ষককে ওই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের পক্ষে ভূমিকাভিনয় করার জন্য অনুরোধ করবেন। এলাকা অনুযায়ী জরুরি পরিস্থিতিগুলোতে যোগাযোগ করার জন্য নির্ধারিত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ভিন্ন হতে পারে। 

 

তাই বাস্তবতার সাথে সংগতি রেখে উপযুক্ত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগের ব্যবস্থা করতে হবে। অর্থাৎ, শিক্ষার্থীরা যেন এমন ধারণা পায় যাতে কোনো এলাকায় ফায়ার সার্ভিস না থাকলে, সেক্ষেত্রে বিকল্প প্রশাসনিক প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ করতে পারে।

এরপর পূর্বের পরিকল্পনা অনুযায়ী শিক্ষক প্রতি দলকে একটি করে জরুরি পরিস্থিতি নির্দিষ্ট করে দেবেন এবং ওই পরিস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে তাদের সরাসরি বা মোবাইল ফোনে লাউড স্পিকারে কথা বলার সুযোগ করে দেবেন। ওই নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে শিক্ষার্থীরা কথা বলার মাধ্যমে জানার চেষ্টা করবে যে নির্দিষ্ট জরুরি পরিস্থিতিতে তারা কী করতে পারে।

নমুনা উত্তর: জরুরি যোগাযোগ

 

ক্রমজরুরি পরিস্থিতি  কোথায় ও কীভাবে যোগাযোগ করবে?
১.তোমার এলাকায় আকস্মিক দুর্ঘটনায় আগুন লেগেছেকোথায়/ কার সাথেঃ ফায়ার সার্ভিস (মোবাইল নম্বর) 

বিকল্পঃ স্থানীয় থানা, মেম্বার, চেয়ারম্যান, কমিশনার, মেয়র, ইউএনও ইত্যাদি। 

কীভাবেঃ মোবাইল কল, সরাসরি কথা বলা। 

যা বলবঃ শিক্ষর্থীরা প্রস্তুত করবে। 

২.খেলার মাঠে এক বন্ধ্য হঠাত অসুস্থ হয়ে পড়েছে। কোথায়/কার সাথে: বিদ্যালয় স্বাস্থ্যকেন্দ্র বা নিকটস্থ হাসপাতাল (মোবাইল নম্বর) 

বিকল্প: উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্স, নিকটস্থ ফার্মেসি, স্থানীয় চিকিৎসক ইত্যাদি। কীভাবে: মোবাইল কল, সরাসরি কথা বলা

যা বলবঃ শিক্ষর্থীরা প্রস্তুত করবে। 

৩.ঝড়ের পরে বিদ্যুতের তার রাস্থায় পড়ে আছে ও দীর্ঘ সময় ধরে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে আছে। কোথায়/কার সাথে: পল্লী বিদ্যুৎ বা ওয়াপদা অফিস (মোবাইল নম্বর)

বিকল্প: স্থানীয় থানা, মেম্বার, চেয়ারম্যান, কমিশনার, মেয়র, ইউএনও ইত্যাদি। কীভাবে: মোবাইল কল, সরাসরি কথা বলা

যা বলব: শিক্ষার্থীরা প্রস্তুত করবে

৪.হারিয়ে যাওয়া কোনো শিশুকে খুঁজে পাওয়া গেছে।কোথায়/কার সাথে: হারিয়ে-যাওয়া শিশুর পরিবারের সদস্য (মোবাইল নম্বর) বিকল্প: স্থানীয় থানা, মেম্বার, চেয়ারম্যান, মেয়র, ইউএনও ইত্যাদি।

কীভাবে: মোবাইল কল, সরাসরি কথা বলা

যা বলব: শিক্ষার্থীরা প্রস্তুত করবে

৫.শিশু নির্যাতন, ইভ-টিজিং বা আইন শৃঙ্খলার অবনতি হয়েছে এমন একটি ঘটনা সম্পর্কে জানতে পেরেছে। কোথায়/কার সাথে: জরুরি নম্বর (৯৯৯, ১০৯৮)

বিকল্প: ইউএনও, মেম্বার, চেয়ারম্যান, কমিশনার, মেয়র, শ্রেণিশিক্ষক, প্রধান শিক্ষক, সমাজ কল্যাণ কর্মকর্তা, নারী ও শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা ইত্যাদি। 

কীভাবে: মোবাইল কল, সরাসরি কথা বলা

যা বলব: শিক্ষার্থীরা প্রস্তুত করবে

৬.বন্ধুদের সাথে আলোচনায় জানতে

পারলে যে ভিন্ন স্কুলের একজন শিক্ষার্থী বাল্যবিবাহের শিকার হতে যাচ্ছে।

কোথায়/কার সাথে: জরুরি নম্বর (৯৯৯, ১০৯৮)

বিকল্প: ইউএনও, মেম্বার, চেয়ারম্যান, কমিশনার, মেয়র, শ্রেণিশিক্ষক, প্রধান শিক্ষক, সমাজ কল্যাণ কর্মকর্তা, নারী ও শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা ইত্যাদি। 

কীভাবে: মোবাইল কল, সরাসরি কথা বলা

যা বলব: শিক্ষার্থীরা প্রস্তুত করবে

 

Visited 281 times, 2 visit(s) today

Leave a Comment

You cannot copy content of this page